Follow us
English

গোয়ার নিজস্ব ঘরানার খাদ্য, রেস্তোরাঁ, স্ট্রিট ফুড

গোয়ার নিজস্ব ঘরানার খাদ্য, রেস্তোরাঁ, স্ট্রিট ফুড

গোয়ায় বেড়াতে যাবেন আর সেখানকার ঐতিহ্যবাহী খাবারদাবারের আস্বাদ নেবেন না, তা হয় নাকি? কয়েক শতাব্দীর মিলমিশের মধ্যে দিয়ে রুপ পেয়েছে বর্তমান গোয়ার খাদ্য সংস্কৃতি। কোঙ্কনী খাদ্যাভ্যাসের সঙ্গে পরবর্তিকালে মিশ্রিত হয়েছে মুসলিম ও গোয়ানিজ খাদ্যরীতি। কোঙ্কনী খাদ্যাভ্যাস গড়ে উঠেছিল কর্ণাটক,মহারাষ্ট্র ও গোয়ার খাদ্যরীতিকে ভিত্তি করে। পর্তুগিজদের আসার আগে প্রায় এক শতক গোয়া ছিল মুসলিমদের শাসনাধীনে। আর পর্তুগিজরা গোয়ায় রাজাত্ব করেছে প্রায় ৪৫০ বছর। গোয়ার অধিবাসীদের জীবনচর্চায় পর্তুগিজ সংস্কৃতির যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে এখনও। গোয়ানিজ খাদ্যরীতিও তাই এক মিশ্রিত খাদ্য-সংস্কৃতির প্রাণদায়ী ফসল।

কয়েকটি জনপ্রিয় গোয়ানিজ খাবার

প্রন বালচাও এটা গোয়ান স্টাইলের প্রন কারি। প্রন, পেঁয়াজ, ভিনিগারে চোবানো মশলা অথবা ফেনি-র মিশেলে রান্না করা হয়। পরিবেশন করা হয় ভাত বা পাওয়ের সঙ্গে।

পর্ক ভিন্ডালু গোয়ায় পর্ক ভিন্ডালু অত্যন্ত জনপ্রিয় ডিশ। লঙ্কা, রসুন ও ভিনিগার সহযোগে রান্না হয় পদটি। পর্কে নারাজ হলে অন্য মাংস দিয়েও পদটি রান্না হতে পারে।

চিকেন জাকুট্টি প্রচুর মশলা সহযোগে নারকোলের দুধে রান্না চিকেনের পদ এটি। গরম মশলা, স্টার অ্যনিস, পোস্ত ব্যবহার করা হয় এই চিকেন কারিতে।

চিকেন কাফরেল কাঁচালঙ্কা, ধনেপাতা, আদা, পেঁয়াজ, রসুন, দারচিনি লেবুর রস ব্যবহার করে তৈরি পেস্ট গোটা চিকেন উইংয়ে মাখিয়ে পদটি রান্না করা হয়। কয়েকটি হার্ব-ও যুক্ত হতে পারে মশলার পেস্টে।

গোয়ার রেস্তোরাঁগুলোতে পাবেন স্টাফড ক্র্যাব,পর্ক চপ, পেরি পেরি প্রন, প্রন ললিপপ, ড্রায়েড প্রন কারি, পিকলড ম্যাকারেল, মাশরুম রিসোট্ট, মাশরুম বার্গার, স্পিনাচ বার্গার, প্রন রেচাডো, চিজ কেক, জিঞ্জার কেক প্রভৃতি জিভে জল আনা সব খাদ্য।

      

অথেনটিক গোয়ান খাবারদাবারের কয়েকটি রেস্তোরাঁ

মামস কিচেনঃ এখানে পাবেন নানা প্রকার সি-ফুড, দুর্দান্ত ফিশ কারি, পমফ্রেটের বিশেষ পদ, পেরি পেরি প্রন, পর্ক ভিন্ডালু। ঠিকানাঃ ৮৫৪,মার্টিনস বিল্ডিং, দয়ানন্দ বান্দোদকর স্ট্রিট, পানাজি। ফোনঃ ৯৮২২১৭৫৫৫৯।

পোসাডা বাই দি বিচঃ সমুদ্র তীরের এই রেস্তোরাঁয় গোয়ান, পর্তুগিজ, কোঙ্কনী ঘরানার নানা পদ পাওয়া যাবে। ঠিকানাঃ গৌরভাড্ডো, কালাঙ্গুটে বিচ, কালাঙ্গুটে, গোয়া। ফোনঃ ৯৯২২২৭৯২৬৫।

ক্যালামারিঃ সি-ফুড ও নানা গোয়ান পদের জন্য সুখ্যাত এই রেস্তোরাঁটি। ঠিকানাঃ ডন্ডো বিচ, ক্যান্ডোলিন, গোয়া। ফোনঃ ৯৩৭১৭০৩৫৩৬।

লা প্লাজঃ গোয়ার অন্যতম সেরা রেস্তোরাঁ এটি। এখানকার সি-ফুড ও বার্গারের যথেষ্ট সুখ্যাতি আছে। পাবেন ফরাসী খাবারদাবারও। ঠিকানাঃ অসয়েম বিচ, পাপা জলি হোটেলের কাছে, অসয়েম রোড, গোয়া। ফোনঃ ৯৮২২১২১৭১২।

মারবেল্লা বিচ রেস্টুরেন্টঃ ইতালীয় ঘরানার সি-ফুড প্ল্যাটার পাবেন এখানে। তবে সেটাই শেষ কথা নয়। পরিচিত ডাল মাখানি, বাটার চিকেন, পনির টিক্কা-ও পেয়ে যাবেন এখানে। ঠিকানাঃ ৭৮২, গদেয়াদা, মরজিময়, অ্যাসেম রোড, অরমবোল, গোয়া। ফোনঃ ০৮৩২-৬৪৫০৫৯৯।

অন্তারেসঃ ভাগাতোর বিচের এই রেস্তোরাঁটির বিশেষ আকর্ষণ লাইভ মিউজিক। সমুদ্রস্নানের পরে পাবেন শরির, মন-জুড়ানো নানাবিধ ককটেল। অস্ট্রেলীয় ঘরানার নানা খাবার পাওয়া যাবে এখানে। পাওয়া যাবে সি-ফুডের রকমারি সব প্ল্যাটার। ঠিকানাঃ স্মল ভাগাতোর বিচ, ওজরান, ভাগাতোর, গোয়া।ফোনঃ ৭৩৫০০১১৫৩৮।

থালাসাঃ থালাসা একটি গ্রিক খাদ্য। সেই খাদ্যের নামেই রেস্তোরাঁর নাম। ভূমধ্যসাগরীয় আঞ্চলের রকমারি খাদ্যের সরবরাহ পাবেন এখানে। ঠিকানাঃ স্মল ভাগাতোর বিচ, ওজরান, ভাগাতোর, গোয়া
ফোনঃ ৯৮৫০০৩৩৫৩৭।

স্ট্রিট ফুড

গোয়ার রাজধানী পাঞ্জিম শহর-সংলগ্ন মিরামার সৈকতে পাবেন প্রচুর খাবারের স্টল। পাবেন আঞ্চলিক নানা খাদ্য। গোয়ান সামোসা, মিসাল পাভ, ফ্রাঙ্কিজ, ক্রকুয়েট্টি, রস ওমলেট, নানা প্রকার চাট পাবেন সৈকতের স্টলগুলিতে।

সি-ফুডে টান থাকলে পাঞ্জিম সিটি মার্কেটে একবার ঢুঁ মারতেই হবে। পমফ্রেট, ম্যাকারেল-সহ অয়েস্টার, স্কুইড, কাঁকড়া, টাইগার প্রনের জিভে জল আনা নানা খাদ্যের পদ পাওয়া যাবে এই বাজারে। বড় বাজার অঞ্চল এটি। গোয়ার মশলা, উন্নত মানের কাজুবাদাম এবং গোয়ার হস্তশিল্প সামগ্রীর সম্ভার পাবেন এখানে।

পানাজি থেকে ১৩ কিলোমিটার দূরে উত্তর গোয়ার মাপুসায় অলঙ্কার ফুড স্ট্রিটে রয়েছে সারি সারি খাবারের স্টল। সন্ধ্যায় শুরু হয় বেচাকেনা। রকমারি গোয়ান খাবারের সঙ্গে পাওয়া যাবে অসাধারণ তন্দুরি ও চাইনিজ পদ। নানাপ্রকার জুস পাওয়া যাবে।

উত্তর গোয়ার জনপ্রিয় সৈকত কালাঙ্গুটে। কালাঙ্গুটে মার্কেট স্কোয়ার একটি বড় বাজার অঞ্চল। প্রতি শনিবার সংহ্যা সাড়ে ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত চলে খাদ্যের বাজার। সারিবদ্ধ খাবারের কিয়স্ক। প্রায় সব রকমের সি-ফুড পাবেন এই বাজারে। পাওয়া যাবে রকমারি স্ন্যাক্স। বিয়ার ও অন্যান্য পানীয়।

কালাঙ্গুটে সৈকতের দক্ষিণে ক্যান্ডোলিম সৈকত। নিরিবিলি সৈকত। ক্যান্ডোলিম বিচ-সংলগ্ন ফুড কিয়স্কগুলিতে অসাধারণ সব স্ন্যাক্স পাওয়া যায়। এই এলাকার প্রন চপ বিখ্যাত। বড়া পাও-ও কম যায় না। আরও নানা প্রকার চপ পাওয়া যায়। বড়া পাও-ও কম যায় না। পাবেন রকমারি গোয়ান পদও।

গোয়ার স্ট্রিট ফুডের সামগ্রিক একটা পরিচয় পেতে হলে আপনাকে আরও যেতে হবে উত্তর গোয়ার সান্তা ক্রুজ, পানাজি, অঞ্জুনা ফ্লি মার্কেট, দক্ষিণ গোয়ার বেটালবেটিম বিচ প্রভৃতি এলাকায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *