Follow us
English

উদয়পুর থেকে তালসারি হয়ে বিচিত্রপুর

উদয়পুর থেকে তালসারি হয়ে বিচিত্রপুর

উদয়পুর

ওড়িশার বালাসোর জেলার সীমানা-ছোঁয়া প্রায় ৩ কিলোমিটার দীর্ঘ সৈকতের পশ্চাৎপটে এখনো রয়েছে কাজুবন, ঝাউয়ের জঙ্গল। তার মধ্যে দিয়ে সরু সরু পায়ে চলা রাস্তা ধরে পৌঁছনো যায় ঝকঝকে প্রশস্ত সৈকতে। উদয়পুর সৈকত। দিঘা রেলস্টেশন থেকে ৩ কিলোমিটার।
পর্যটকদের থিকথিকে ভিড়, গাড়িঘোড়া, দোকানপসারের তুমুল ব্যস্ততা, এসব অনুপস্থিত উদয়পুর সৈকত ও সংলগ্ন এলাকায়। ওল্ড দিঘা, নিউ দিঘা থেকে উদয়পুর সৈকতে বেড়াতে আসেন অনেকে। ফিরেও যান। সমুদ্রে সূর্যোদয়,সূর্যাস্ত দেখা যায় প্রানভরে। গায়ে গায়ে হোটেল গড়ে ওঠেনি এখানে।

 

থাকার ব্যবস্থা খুবই সীমিত। ইতিউতি চোখে পড়বে ধীবরদের কিছু কুটির। কাজুর জঙ্গলে পাখির ডাক শোনা যাবে। সামুদ্রিক বাতাসে শোঁ শোঁ শব্দ উঠবে ঝাউবনে। আর সব চুপচাপ।
উদয়পুর থেকে ওড়িশার তালসারি সৈকত ৭ কিলোমিটার, বিচিত্রপুর ম্যানগ্রোভ অরণ্যের প্রবেশদ্বার বিচিত্রপুর নেচার ক্যাম্প ১৩ কিলোমিটার। দিনে দিনেই বেড়িয়ে আসা যায় জায়গা দুটি থেকে। তালসারি থেকে চন্দনেশ্বর মন্দির সাড়ে ৩ কিলোমিটার।

 

থাকার ব্যবস্থা :

উদয়পুর সৈকতের কাছে ওড়িশা সীমান্ত লাগোয়া দত্তপুরে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ মৎস্য উন্নয়ন নিগমের ওসিয়ানা গেস্টহাউস কমপ্লেক্স। এক হেক্টর জমির ওপর বিশাল এই কমপ্লেক্সে রয়েছে ফুলের বাগান,জলাশয়,রেস্তোরাঁ, গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা, কনফারেন্স হল, চিলড্রেন্স পার্ক।

এখানে রয়েছে`দুটি দ্বিশয্যার এসি সুপার ডিলাক্স রুম (ভাড়া ১৭৯৯ টাকা), ৬টি দ্বিশয্যার এসি ঘর (ভাড়া ১৬০০টাকা), ২টি দ্বিশয্যার এসি ঘর (ভাড়া ১৪০০ টাকা) এবং চার শয্যার একটি এসি ডর্মিটরি (শয্যা প্রতি ভাড়া ৪৫০ টাকা) রয়েছে এখানে।
প্রতিটি দ্বিশয্যা ঘরে ২জন প্রাপ্তবয়স্ক থাকতে পারেন। সঙ্গে থাকতে পারে একটি শিশু। শিশুটির বয়স ১০ বছরের বেশি হলে দিন প্রতি অতিরিক্ত ১০০ টাকা দিতে হবে।

ফোন নম্বর  : ৩২২০২৬৬১৪৯, ৯৪৭৪৫৯৯৮৫৩

 

তালসারি

উদয়পুর থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে ওড়িশার বালাসোর জেলার তালসারি সৈকত। তালসারির সমুদ্রতীরে একসময় ছিল সারি সারি তালগাছ। এখনো আছে অনেক তাল আর নারকেল গাছ। সম্ভবত সারি সারি তালগাছের কারণেই একসময় সৈকতের নাম হয় তালসারি। বাংলায় ‘তাল’ কথাটির আরেকটি অর্থ ‘ছন্দ’। তালসারির অন্যরকম সৈকতে একটা ছন্দ খুঁজে পাওয়া যাবে একটু সময় নিয়ে পর্যবেক্ষণ করলে। তালসারি সৈকতের অদূরে সুবর্ণরেখা নদী মিশেছে বঙ্গোপসাগরে।

মূল সৈকত বরাবর তৈরি হয়েছে ব্যাকওয়াটার চ্যানেল। জোয়ারে ব্যাকওয়াটার টইটম্বুর। ভাঁটায় জল নেমে যায়। তখন কর্দমাক্ত পথে সৈকতে পৌঁছানো যায়। জোয়ারের সময় ব্যাকওয়াটার চ্যানেল পেরতে নৌকার সাহায্য লাগবে। তালসারির শান্ত পরিবেশে সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের রং, রুপ অপরুপ।

ব্যাকওয়াটার ঘেঁষে রয়েছে মাছের আড়ত। সকালে জেলেরা সমুদ্র থেকে মাছ ধরে এনে আড়তে জমা করেন। সকাল সকাল তালসারির সৈকতে মাছধরার নৌকাগুলোর তীরে ফিরে আসা দেখা যায়। আড়তে গিয়ে সদ্য ধরা সামুদ্রিক মাছ দেখতে পারেন।
তালসারি সৈকত থেকে ওড়িশার চন্দনেশ্বর মন্দির সাড়ে ৪ কিলোমিটার।

যাওয়ার পথ
আগে চলে আসুন দিঘায়। দিঘা থেকে তালসারির দূরত্ব ৮-১০ কিলোমিটার। গাড়ি ভাড়া করে তালসারি চলে আসা যাবে।

থাকার ব্যবস্থা ওড়িশা পর্যটন উন্নয়ন নিগমের পান্থনিবাস রয়েছে তালসারিতে। ফোনঃ ০৬৪৮১২-৩২৫২৮। ওড়িশা পর্যটন উন্নয়ন নিগমের ওয়েবসাইটঃ www.otdc.in
বেসরকারি হোটেলঃ সাগর সৈকত, ফোনঃ ৯৭৩৪৫-০১৯০৩, ৯৭৩২৫-৪৪৫১১।

 

জল-জঙ্গল লাল কাঁকড়ার বিচিত্রপুর

ঝাড়খণ্ডের রাজধানী রাঁচির কাছে সুবর্ণরেখা নদীর উৎপত্তিস্থল। তারপর ঝাড়খন্ড, পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশার মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত হয়ে এই নদী মিশেছে বিচিত্রপুরের কাছে বঙ্গোপসাগরে। নদীর মোহনায় ৫৬৩ হেক্টর এলাকা জুড়ে গড়ে উঠেছে ম্যানগ্রোভ অরণ্য। খাঁড়িপথে মোটর বোটে চড়ে ঘুরে দেখা যায় সেই অরণ্য। নামা যায় নদী মোহনায় গড়ে ওঠা দ্বীপে। সেখানে ঝাঁকে ঝাঁকে ঘুরে বেড়ায় লাল কাঁকড়া। দেখা মিলতে পারে অশ্বক্ষুরাকৃতির কাঁকড়াও (হর্স শু ক্র্যাব)। শীতে দেখা যাবে নানা পরিযায়ী পাখি।

বিচিত্রপুরের প্রবেশদ্বার খড়িবিলে রয়েছে ইন্টারপ্রিটেশন সেন্টার। বিচিত্রপুর ম্যানগ্রোভ অরণ্যের জীববৈচিত্র সম্পর্কিত নানা তথ্য জানা যাবে এখান থেকে। বিচিত্রপুর থেকে তালসারি সৈকত  ১০ কিলোমিটার। তালসারি থেকে সাড়ে ৩ কিলোমিটার দূরে চন্দনেশ্বর মন্দির। বিচিত্রপুর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে বালাসোর জেলার ভোগরাই গ্রামে সুবর্ণরেখা নদীর তীরে রয়েছে ভূষণ্ডেশ্বর মন্দির।
এই মন্দিরে রয়েছে ১২ ফুট উচ্চতা ও ১৪ ফুট বেড়ের বিশালাকার শিবলিঙ্গ। বিচিত্রপুর থেকে উদয়পুর সৈকত ১৩ কিলোমিটার, দীঘা ১৫ কিলোমিটার।

 

যাওয়ার পথ:

ট্রেনে বা বাসে দিঘা পৌঁছে সেখান থেকে প্রাইভেট গাড়ি ভাড়া করে বা নিজেদের গাড়িতে বিচিত্রপুর ম্যানগ্রোভ অরণ্যের প্রবেশদ্বার খড়িবিলে পৌঁছানো যায়। দিঘা থেকে বিচিত্রপুর দূরত্ব ১৫ কিলোমিটার।

থাকার ব্যবস্থা :

বিচিত্রপুরে থাকার জন্য রয়েছে ওড়িশা বন উন্নয়ন নিগমের ৮ টি এসি কটেজ এবং দ্বিশয্যার ৬টি নন এসি কটেজ। থাকা, খাওয়া, অরণ্যে ভ্রমণ সমেত খরচ ৩৭১৪ টাকা (ট্যাক্স সহ)। ঠিকানা : বিচিত্রপুর নেচার ক্যাম্প , বালাসোর , ওড়িশা। ফোন নম্বর : ৭০৬৪৪৪৫৫৮৮, ৬৩৭০৪৬৬৭০১। ঘর বুক করা যাবে এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে : https://www.ecotourodisha.com/

দিঘা বা উদয়পুর থেকেও দিনের দিনে বিচিত্রপুর সফর করা যেতে পারে। দূরত্ব দিঘা থেকে ১৫ কিলোমিটার , উদয়পুর থেকে ১২ কিলোমিটার। বোটিংয়ের জন্য টিকিট কিনতে হবে খড়িবিলের বিচিত্রপুর ইকো টুরিজম সেন্টারের কিয়স্ক থেকে।

বোটিংয়ের সময় : সকাল ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত। তবে জোয়ারের সময়েই বোট চলবে। তাই একটু সময় হাতে নিয়ে যাওয়াই ভালো। ঘন্টাখানেকের নৌকা ভ্রমণের জন্য ৬ আসনের বোটের ভাড়া ১২০০ টাকা এবং ৮ আসনের বোটের ভাড়া ১৪০০ টাকা। আরও তথ্যের জন্য ফোন করতে পারেন উপরোক্ত নম্বরে।

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *